Thomas_Edison2

থমাস আলভা এডিসন বিজ্ঞানের উৎকর্ষতা সাধনের এক অনবদ্য অগ্রদূত। আজকের দিনেও ঘরের অন্ধকার দূর হয় এডিসনের বৈদ্যুতিক বাতির কল্যানে। সমগ্র মানব জাতিকে উপহার দিয়েছেন বিজ্ঞানের বিভিন্ন বিস্ময়কর আবিস্কার। তিনি সর্বকালের সেরা আবিস্কারক। তার আবিস্কার পৃথিবীকে দিয়েছে নতুন রূপ।

১৮৪৭ সালের ১১ই ফেব্রুয়ারীতে আমেরিকার ওহিওতে তার জন্ম। সাত ভাইবোনদের মধ্যে তিনি ছিলেন সর্বকনিষ্ঠ। খুবই দরিদ্র ছিলেন তারা। ছোটকালে অনেক অসুস্থ ছিলেন এবং তার কানে ইনফেকশন হয়ে একটি কান নস্ত হয়ে যায় (যদিও অনেকে মনে করে তার দুটি কানই নষ্ট হয়েছিল)। এছাড়াও স্কারলেট জ্বরে আক্রান্ত হয়ে মরতে বসেছিলেন। কিন্তু এতকিছুও তাকে থামাতে পারেনি।

এতিম এডিসনের বাল্যকাল কেটেছে ডাচদের সাথে। অভাবের তাড়নায় রেলস্টেশনে ক্যান্ডি ও পত্রিকা বিক্রি করেছেন, একসময় পরিবারকে সাহায্য করতে সবজি বিক্রি করতেন। মায়ের কাছ থেকে নেয়া শিক্ষা থেকেই তার শিক্ষাজীবন শুরু হয়। প্রাথমিক অবস্থায় তার বেশিরভাগ শিক্ষাকাল আর. জি. পার্কাসে স্কুল অফ ন্যাচারাল ফিলোসোফিতে অতিবাহিত করেন।

তার পেশাগত জীবন শুরু হয় নিউইয়ার্কের নিউজার্সিতে। তিনি বিজ্ঞান বিষয়ে পড়াশুনা করার সুযোগ না পেলেও তিন বছর বয়সী জিমি ম্যাকেঞ্জিকে ট্রেন দুর্ঘটনা থেকে জীবনরক্ষার সুবাদে চাকরী পান টেলিগ্রাফ পরিচালনা বিভাগে। এই কোম্পানীতে চাকরীর কল্যানে তিনি বিভিন্ন বৈজ্ঞানিক যন্ত্রপাতির সাথে পরিচিত হন। চাকরিক্ষেত্রে ‘অটোম্যাটিক রিপিটার’ এবং ‘টেলিগ্রাফিক ডিভাইসের’ উন্নতি সাধন করতে যেয়ে আবিস্কার করে বসেন ‘ফনোগ্রাফ’ যন্ত্র। যা অনেকের কাছে গ্রামোফোন নামে পরিচিত। তার আবিস্কৃত এই যন্ত্রটি শব্দশিল্পের প্রভূত অগ্রগতি এনে দেয়। এই আবিস্কারের মাধ্যমে তিনি সবার কাছে ‘দি উইজার্ড অফ মেনলো পার্ক’ নামে পরিচিত।

আজ আমরা যে বৈদ্যুতিক বাতি দেখি তা তারই আবিস্কার। নিউজার্সিতে তিনি গড়ে তোলেন প্রথম ইন্ডাস্ট্রিয়াল রিসার্চ ল্যাব। তার অন্যান্য আবিস্কারের মধ্যে রয়েছে কার্বন টেলিফোন ট্রান্সমিটার, বৈদ্যুতিক পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন প্রভৃতি। ব্যক্তিজীবনে তিনি ছিলেন মুক্ত চিন্তার অধিকারী। খাদ্য-অভ্যাসের ব্যাপারে তিনি ছিলেন অত্যন্ত সৌখিন। তিনি তার আবিস্কারের জন্য অনেক জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পুরস্কার লাভ করেন। তার নামে বিশ্বে বিভিন্ন জায়গায় স্থানের ও প্রতিষ্ঠানের নামকরন হয়েছে। এ মহান ব্যক্তি ১৯৩১ সালের ১৮ই অক্টোবর ৮৪ বছর বয়সে নিউজার্সিতে মৃত্যুবরন করেন।

[অনুবাদ]

Similar Posts

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।