building-relationships

মানুষের কাছ থেকে কিছু পাবার জন্য কিছু দিতে হয়। প্রথমে আপনাকেই দিতে হবে। যদি না দেন, তাহলে হয়ত বড় ভুল করছেন।

সবাই চেষ্টা করে মানুষের সাথে খাতির করে, নিজের যোগাযোগ বাড়াতে। কিন্তু অল্প কয়েকজন ছাড়া বাকিরা কিন্তু একই ভুল বারবার করে।

নিজের শুভাকাঙ্খীর সংখ্যা বাড়াতে চাইলে নিচের ব্যাপারগুলো থেকে দূরে থাকুন।

১।  কিছু দেওয়ার আগেই পাওয়ার ইচ্ছা।

যোগাযোগের মূল উদ্দেশ্য হল, এমন কাউকে আপনার দলে টানা যে আপনাকে ভবিষ্যতে সাহায্য করবে। আপনার কথা অন্যদের জানাবে। দীর্ঘ মেয়াদে কিছু পাওয়ার জন্যই এই সম্পর্ক তৈরি করা।

কিন্তু প্রথমে নিজে কি চান তা বলতে যাবে না। আসলে আপনার নিজের প্রয়োজন কাউকে বলারই দরকার নাই। আপনার কি দরকার ভুলে গিয়ে আপনি কি দিতে পারবেন সেদিকে মনোযোগ দিন। সাহায্য করলেই আসল সম্পর্ক আর যোগাযোগ তৈরি হবে। যদি নিজের লাভের জন্য বেশি ঘাটাঘাটি করেন তবে কোন লাভজনক কিছু করতে পারবেন না। দুই পক্ষের কারও জন্যই এটা ভালো হবে না।

যদি মানুষের সাথে যোগাযোগ বাড়াতে চান, তবে মনে রাখবেন অন্যের জন্যই আপনাকে কাজ করতে হবে।

 

২। অন্যরা নিজে থেকে আপনার প্রয়োজন বুঝবে।

আপনি খুব বিপদে থাকতে পারেন। হয়ত বড় কোন কোম্পানির সাথে কাজ করলে আপনার ব্যবসা বেঁচে যাবে। এটা নিয়ে কারও মাথাব্যাথা থাকবে না। কেউ চিন্তাও করবে না। এটা সম্পূর্ণই আপনার নিজের সমস্যা।

কেউ আপনাকে সাহায্য করবে সেই আশায় থাকবেন না। মানুষ আপনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করতে পারে কিন্তু আপনার জন্য সে কাজ করতে বাধ্য নয়। সাহায্য পাওয়ার একমাত্র উপায় হল অন্যের জন্য কিছু করা। মানুষের খোঁজ নিন, তাদের কিসে সাহায্য লাগবে জেনে নিন।

অন্যের জন্য কাজ করুন, কেবলমাত্র তখনই তারা আপনাকে সাহায্য করবে।

 

৩। সবার সাথে খাতির করা।

কিছু কিছু মানুষ নিজের কার্ড কোচিং সেন্টারের লিফলেটের মত করে বিলি করে। নেটওয়ার্ক তৈরি করতে এত সংখ্যায় কার্ড বিলানোর দরকার নাই। আপনি যাকে সাহায্য করতে পারবেন এমন কাউকে খুঁজে বের করুন। ভেবে দেখুন সে আপনাকে ভবিষ্যতে সাহায্য করবে কিনা, এরপর নিজের মত কাজ করুন।

নিজে যাকে চান তার সাথেই খাতির করুন। আর লিস্ট ছোট রাখুন, কারণ অনেক মানুষের সাথে একই সঙ্গে ভালো সম্পর্ক রাখা সম্ভব নয়।

 

৪। যন্ত্রের উপর বেশি ভরসা করা।

টুইটারের ফলোয়ার আর ফেইসবুক বন্ধু থাকা ভালো, যদি তাদের নিয়ে কিছু করতে পারেন। তবে সম্ভাবনা আছে যে, আপনার টুইট আর ফেইসবুকের হোম পেইজ আপনার বন্ধুরা খুব কমই দেখে। আসলে এইসব সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমের ভরসা নেই।

এইসব ব্যবস্থার মাধ্যমে যোগাযোগের সূত্রপাত হতে পারে কিন্তু যোগাযোগ রক্ষা করার জন্য আপনাকে কাজ করতেই হবে। সহজে আর আটোম্যাটিক কোন কিছু দিয়ে ফলপ্রসূ যোগাযোগ খুব বেশি দিন করতে পারবেন না।

 

৫। উচ্চাকাঙ্খা।

আপনি যদি অর্থনৈতিক সেবা প্রদান করেন তবে, নাম করা ব্যাংকের সাথে যোগাযোগ থাকলে খুবই ভালো অথবা ধরেন আপনি কম্পিউটারের যন্তাংশ বিক্রি করেন তবে ইন্টেলের মালিকের সাথে যোগাযোগ থাকা যেমন ভালো তেমনি অসম্ভব।

সবচেয়ে ভালো সম্পর্ক থাকে যখন দুই পক্ষেরই লাভ হয়। আপনি ইন্টেল বা নাম করা ব্যাংক কে কিছুই দিতে পারবেন না। আপনার উঁচু লেভেলে কানেকশন দরকার, কিন্তু দুই পক্ষের লাভ ছাড়া যোগাযোগ রক্ষা হবে না। আপনাকে যোগাযোগের জন্য যোগ্যতা অর্জন করতে হবে। এমন কাউকে খুঁজুন যাকে আপনি আপনার জ্ঞান, চিন্তা আর আপনার শুভাকাঙ্ক্ষীদের দিয়ে সাহায্য করতে পারবেন।

[অনুবাদ]

Similar Posts

1 Comment

  1. amra jodi nijeder attitude k eivabe change krte pari tahole amades pathchola & friendship k increae kora amader pokke aro easy hobe bole ami mone kori..a lot of thanks.

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।