how-to-deal-with-a-toxic-employee-480x360আপনার প্রতিষ্ঠানের সুনামহানি করতে পারে এমন ৩ ধরনের কর্মচারীদের কথা এবং তাদের খারাপ আচরণ রোধে কী করণীয় তা এখানে তুলে ধরা হল।

যদি সব কর্মচারীরাই ভাল হত, তাহলে কতই না ভাল হত! সকল ম্যানেজার আর সিইওদের জন্য তখন কাজ করা আরো সহজ হয়ে যেত, তাই না?

কিন্তু দুর্ভাগ্য যে, কোন না কোন সময়ে আমরা সবাই আমাদের প্রতিষ্ঠানে দূষিত কর্মচারীদের মুখোমুখী হতে হয়েছে। নিয়োগ প্রক্রিয়ার সময়েই যথা সম্ভব সন্দেহভাজনদের বাদ দেওয়া হয়, কিন্তু কথা হল কয়েকটি ইন্টারভিউয়ে একজন মানুষকে আর কতটুকুই বা ভালভাবে বোঝা যায়? তাছাড়া খারাপ আচরণ প্রকাশ পেতে কয়েক মাস এমনকি কয়েক বছরও লেগে যেতে পারে।

এখন চ্যালেঞ্জ হল দূষিত কর্মচারীদের চিহ্নিত করে তাদের খারাপ আচরণ রোধ করা এবং তাদেরকে বরখাস্ত করা ছাড়াও আপনি তাদেরকে সংশোধন করতে পারেন।

আপনার প্রতিষ্ঠানের সুনামহানি করতে পারে এমন ৩ ধরনের কর্মচারীদের কথা এখানে তুলে ধরা হল, হয়ত আপনার প্রতিষ্ঠানে আরো কয়েক ধরনের দূষিত কর্মচারী থাকতে পারে। নিচের মন্তব্য বিভাগে আপনার প্রতিষ্ঠানের দূষিত কর্মচারীদের কথা তুলে ধরতে পারেন।

 

ঘ্যানঘ্যান করা কর্মচারী

এরা হল তারাই যারা প্রতিষ্ঠানের খুঁত বের করার অপেক্ষায় থাকে এবং এ ব্যাপারে যাকে পাবে তার কাছে অভিযোগ তুলবে। হয়ত অন্য সহকর্মীরা তাদের এই আচরণ সহ্য করে নেবে কিন্তু একটা সময় তা বিরক্তির কারণ হয়ে উঠে। ছোট খাটো বিষয় নিয়েও তারা কথা বলতে ছাড়বে না। তারা আপনার ভেতরের দোষ বের করে আনবেই এবং তারা চাইবে অন্যরাও তাদের সাথে তাল মিলাক।

বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এ ধরনের কর্মচারীদের কাজের বাইরেই সমস্যা থাকে যা তারা অফিসে তাদের সাথে করে নিয়ে আসে। এখন আপনার কী উচিত হবে তাদের সেই সমস্যাগুলো চিহ্নিত করা? হয়ত না। তবে যদি তারা কাজে পারদর্শী হয়ে থাকে, তাহলে হয়ত আপনি তাদের ব্যক্তিগত সমস্যা তাদের সাথে কথা বলতে পারেন।

সমাধানঃ এসব কর্মচারীদের সাথে বসুন এবং তাদেরকে বলুন যে আপনি জানতে পেরেছেন যে তারা আপনার প্রতিষ্ঠানে কাজ করে সুখী নয় এবং কী করলে তাদের ভাল লাগবে তা জিজ্ঞেস করুন। কাজের বাইরে সবকিছু ঠিক আছে কিনা তা জানতে চান। হতে পারে আপনার কর্মচারী এসময় কেঁদে ফেলতে পারে। তবে যাই হোক না কেন, আপনি তার এহেন আচরণের কারণ সম্পর্কে অবগত হবেন এবং সেই কর্মচারীও বুঝতে পারবে যে সবাই তার আচরণ খেয়াল করছে। এবং এটি দুই পক্ষেরই কাজে আসবে।

 

 

পরচর্চা করা কর্মচারী

এরা হল তারাই যারা আপনার প্রতিষ্ঠানের জন্য সবচেয়ে যন্ত্রণা সৃষ্টিকারী। এরা ভাল হোক বা খারাপ হোক যেকোন তথ্য গুজব আকারে ছড়িয়ে দিতে সক্ষম। “আমি শুনেছি যে আমাদের প্রতিষ্ঠানটি বিক্রি হয়ে যাচ্ছে”, “আপনি কি জানেন যে এই ব্যক্তি অমুকের সাথে দেখা করেছে? মনে হয় তারা চলে যাচ্ছে”, “কোম্পানি পার্টিতে এই ব্যক্তি অমুকের সাথে সময় কাটিয়েছে এবং আমি শুনেছি তারা বেশ অন্তরঙ্গ ছিল” – এমন কথা এদের মুখ থেকেই শোনা যায়।

সমাধানঃ আপনি ভাবতে পারেন যে এধরনের কোন কর্মচারী আপনার প্রতিষ্ঠানে নেই, কিন্তু বিশ্বাস করুন আর নাই করুন, এধরনের কর্মচারী আপনার প্রতিষ্ঠানেও আছে। এদেরকে নিয়ে কী করবেন? প্রথমত, এরা কী ধরনের গুজব ছড়াচ্ছে তা ভালভাবে জানার চেষ্টা করুন। যদি আপনি আপনার কর্মীদের সাথে সম্পৃক্ত থেকে তাদের বিশ্বাস অর্জন করে থাকেন তাহলে কেউ না কেউ আপনার কাছে এসে জানতে চাইবে যে তারা যা শুনেছে তা সত্য কিনা। এরপর আপনি গুজবের ব্যাপারে অবগত আছেন তা আপনার পুরো দলকে জানাতে পারেন এবং তাতে একেবারে ইতি টেনে ফেলতে পারেন।

যদি গুজবগুলো নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়, তাহলে এধরনের কর্মচারীদের সাথে বসুন এবং বলুন যে আপনি বেশ কিছু গুজব সম্পর্কে জানতে পেরেছেন, এগুলো যদি অন্য কেউ বলে থাকে তাহলে তা যেন আপনাকে অবহিত করা হয়। তাকে বলুন যে আপনি চান সে নিজেই এই গুজব ছড়ানো বন্ধ করা নিশ্চিত করুক। এতে সে বুঝবে যে আপনি অন্য কারো দিকে তর্জনী নির্দেশ না করে একমাত্র তাকেই কাজটি ন্যস্ত করেছেন।

লুকিয়ে থাকা কর্মচারী

এরা হল তারাই যারা নিজেদের কাজের ব্যাপারে নিচু মান সেট করে রাখে এবং প্রতিবারই সে অনুযায়ী কাজে একটু বেশিই ভাল করে আপনাকে দেখিয়ে থাকে। কিন্তু বাস্তবে এরা তাদের সহকর্মীদের থেকে অনেকাংশে পিছিয়ে থাকলেও, আপনি তাদের কাজ দেখে খুশি হন। এর ফলে কিন্তু আপনি তাদের নিচু মানের কাজকেই বাহবা দিচ্ছেন।

এধরনের কর্মচারীদের নিয়ে সমস্যা হল এরা নিচু মানের কাজ করে এবং এদের সহকর্মীরা যখন দেখে যে আপনি তাদের কাজ নিয়ে সন্তুষ্ট, তারা ভেবে নেয় এমনটা করাই বোধহয় স্বাভাবিক। তারা বলতে পারে যে, এরা তো সামান্য কাজেও প্রশংসা পায়।

সমাধানঃ এদের ব্যাপারে আপনার করণীয় কী? এদের জন্য স্মার্ট লক্ষ্য নির্ধারণ করে দিন এবং তাদের যে স্থানে থাকার কথা সে স্থানে যাওয়ার জন্য তাগাদা দিন। স্মার্ট লক্ষ্য বলতে কী বোঝায়? যেসব লক্ষ্য সুনির্দিষ্ট, পরিমাপযোগ্য, অর্জনীয়, প্রাসঙ্গিক এবং সময় আবদ্ধ। এর ফলে তারা বুঝতে পারবে যে সামনে দিকে এগিয়ে যেতে হলে তাদের কী করা উচিত।

আপনার প্রতিষ্ঠানে কি দূষিত কর্মচারী রয়েছে? আপনি কীভাবে তাদেরকে আরো ভাল কর্মী হিসেবে গড়ে তুলবেন সেটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

Similar Posts

Leave a Reply