Puppet-e1358703526888এমন এক পৃথিবীতে যেখানে সবাই উদ্যোক্তা আর নেতা হতে চায়, সেখানে আপনি যা নন তা না হতে যাওয়াটাই শ্রেয়।

যদি আপনি অভিজ্ঞ হয়ে থাকেন, তাহলে আপনি বুঝতে পারবেন যে আপনি কী করতে চান না আর কী করতে চান তার সেতুবন্ধনের ফলেই সাফল্য সূচিত হয়। যেকোন সিইও, উদ্যোক্তা বা ভেঞ্চার ক্যাপিটালিস্ট আপনাকে একই কথা বলবেন যে লক্ষ্য না থাকাটাই হল সবচেয়ে বড় শত্রু।

এটি সবসময়ের জন্য সত্য, কিন্তু এর থেকেও আরো বেশি বেশি করা বা অন্য মনস্ক হয়ে পড়ার প্রবণতাও দিন দিন বাড়ছে।

ভুল বোঝার কোন অবকাশ নেই এখানে। কিছু মানুষ আছে যারা খুব সহজেই অন্য মনস্ক হয়ে পড়ার তাদের স্বাভাবিক প্রবৃত্তিকে বিভিন্ন উপায়ে সুযোগ করে দেয়। এবং তাদেরকে প্রতিনিয়তই এই প্রবৃত্তির বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যেতে হয় যা কোন হাস্যকর কথা নয়।

অভিজ্ঞতা এবং বেশ কিছু সফল এক্সিকিউটিভ ও ব্যবসায়িক নেতাদের সাথে কাজ করার আলোকে দেখা গেছে যে কিছু বিষয় আছে যা তারা কখনও করেন না। এটি তারা সহজাত প্রবৃত্তি নাকি জ্ঞানগত প্রবৃত্তি থেকে করে থাকে যা জানা যায়নি। তারা যে ৭টি কাজ বলতে গেলে কখনও করেন না তা এখানে উল্লেখ করা হল:

. অন্যরা যা করে।

এর পুরোপুরি বাইরে গিয়ে, তারা প্রচলিত জ্ঞান নিয়ে প্রশ্ন করে এবং পদমর্যাদার শ্রেণীকরণকে চ্যালেঞ্জ করে থাকে। খামখেয়াল, সাংস্কৃতিক আদর্শ, দলগত চিন্তাধারা – এগুলো নিয়ে তারা মাথা ঘামায় না। তারা তাদের নিজস্ব ব্র্যান্ড, নিজস্ব কর্ম উৎপাদনশীলতা বা সামাজিক মিডিয়া নিয়ে ভাবে না।

তবে এটি যদি তাদের দক্ষতা ও আবেগের পর্যায়ে পড়ে যা তাদের ব্যক্তিত্ব নির্ণয় করে, তাহলে ভিন্ন কথা। নিশ্চয়ই মার্ক জুকারবার্গ এবং জ্যাক ডরসি সময় পেলেই তাদের ফেইসবুক এবং টুইটার পেজ আপডেট করে থাকেন।

. দুর্বলতা নিয়ে মাথা ঘামানো।

হয়ত তাদের এটি করা উচিত। কারণ এটি সফল ব্যক্তি এবং সত্যিকারের সফল ব্যক্তিদের মাঝে পার্থক্য গড়ে দেয়। সাধারণত তারা তাদের নিজেদের নিয়ে বেশ আত্মবিশ্বাসী এবং স্বাচ্ছন্দ্য। অনেকের মধ্যে যে ভয় আর সংশয় থাকে তা তাদেরকে আক্রান্ত করে না। তারা যা না তা নিয়ে তারা বাড়াবারি করে না বরং তা তারা গ্রহণ করে নেয়।

ভুল বুঝবেন না। তারাও মানুষ, তাদেরও ভয় আছে। কিন্তু তাদের সাফল্যের অন্যতম কারণ হল তারা যে কাজটি করে সেটি আন্তরিকতার সাথে করে। তারা তাদের আসল পথের সন্ধান পেয়েছে। পছন্দের জিনিস নিয়ে তারা যখন কাজ করে, তখন তারা স্বাচ্ছন্দ্যের সাথেই তা করে, কোন ভয় থেকে করে না। এবং তা তাদের কাজে প্রতিফলিত হয়।

. অহেতুক সময় নষ্ট করা।

এমন না যে তারা কাজের উৎপাদনশীলতা বা সময় ব্যবস্থাপনা নিয়ে চিন্তিত। তারা অহেতুক সময় নষ্ট করে না কারণ তাদের একটি জীবনের ব্রত ও দূরদৃষ্টি রয়েছে। তারা যা করতে ভালবাসে তা করেই তারা তাদের জীবন কাটিয়ে দিতে চায়।

অন্যরা যেসব কাজে তাদের জীবন নষ্ট করে দেয় সেসব কাজ তারা করে না। তারা অন্যদের মাথার ভেতর প্রবেশ করতে চায় না। যা ঘটে তার কারণ বা মানুষ কেন একটা কাজ করে সে সম্পর্কে তারা কোন প্রশ্ন করে না। তবে এটি যদি কোন সমস্যা হয়ে থাকে যার সমাধান দরকার, তাহলে ভিন্ন কথা।

কোনকিছু ভিন্ন হবে তারা এমনটা আশা করে না, তারাই কোনকিছুকে ভিন্নতা দিয়ে থাকে।

. সফল হওয়ার চেষ্টা করা।

ভুল বুঝবেন না। এমন না যে তারা কান্ডজ্ঞানহীন ব্যবসায়ী। এখানে যা বোঝানোর চেষ্টা করা হয়েছে তা হল যে তারা শুধুমাত্র কোনকিছু অর্জন করার চেষ্টায় থাকে। একটা অর্জন হয়ে গেলে তারা অন্যটা নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ে। এভাবে চলতে থাকে। বেশিরভাগ সফল ব্যক্তিরা কাজ করা, কোনকিছু অর্জন করা এবং জয় পাওয়ার ব্যাপারেই বিভোর থাকে। আর সাফল্য তো এসবের ধারাবাহিকতারই ফল।

. নিজের মাঝে ডুবে থাকা।

শুধু নিজের দূরদৃষ্টি নিয়ে অধিক মাত্রা বুদ হয়ে থাকারও একটা অসুবিধা রয়েছে। আপনি এর ফলে এক রকম অন্ধ হয়ে যেতে পারেন। এই কারণেই প্রথম প্রথম সাফল্য পায় অনেকেই কিন্তু পরবর্তীতে তারা তা ধরে রাখতে ব্যর্থ হয়। তারা প্রশ্ন করা থামিয়ে দেয়, নিজের পদমর্যাদা নিয়ে ব্যস্ত থাকে এবং দ্বিধান্বিত আইডিয়া নিয়ে পড়ে থাকে।

যারা অনেক কিছু অর্জন করেছে তা নিজেদেরকে কথায় তাল মেলানো মানুষদের দ্বারা পরিবেষ্টিত করে রাখে না, দলগত চিন্তাধারায় সায় দেয় না বা ধ্রুব সত্য ছাড়া অন্য কোনকিছু গ্রহণ করে না। বলা বাহুল্য যে তারা হয়ত শুরুতে আপনার বিরক্তি সৃষ্টি করবে। কিন্তু তার মানে এই নয় যে তারা অন্যদের কথা শুনছে না। ব্যাপারটা আসলে এই রকমই।

. প্রতিযোগিতার ভয় করা।

তারা প্রতিযোগিতা বোঝে, তাদের প্রতিযোগীদের ব্যাপারে অবগত এবং প্রতিযোগিতা নিয়ে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে থাকে। তারা সাধারণত তাদের সামর্থ্য নিয়ে আশাবাদী এবং প্রতিযোগিতাপূর্ণ লড়াইয়ে সাহসী মনোভাব সম্পন্ন।

এর মানে হল, তারা বোকা নয়। তারা টিকবে কি টিকবে না সে ব্যাপারে তারা নিশ্চিত নয়। তারা তাদের সর্বোচ্চটা দিয়েই যথাসাধ্য ভাল করার চেষ্টা করবে। হয়ত তারা অতীতের দিকে তাকিয়ে দেখবে তারা কোন লড়াইয়ে জয় পেয়েছে কিন্তু তা হবে ক্ষণিকের জন্য। ততক্ষণে, তারা অন্য আরেকটি লড়াইয়ে জড়িয়ে পড়বে।

 

. তারা যা না তা হওয়ার চেষ্টা করা।

যেকোন একজন সফল এক্সিকিউটিভ, ভিসি, উদ্যোক্তা বা ব্যবসা মালিকের বর্তমান অবস্থান ভাল করে খেয়াল করা হলে দেখবেন যে তাদের কেউই কিন্তু তাদের নিজস্বতা ত্যাগ করেননি। যে আপনাকে আপনার পছন্দের কাজ করার চেয়ে নিজের প্রমোশনের উপর বেশি গুরুত্ব দিতে বলবে তারা আসলেই এই ব্যাপারটি বুঝতে অক্ষম।

এটি শুনতে সহজ লাগলেও, এই ব্যাপারটিই কিন্তু আপনাকে অন্যদের থেকে আলাদা করে তুলবে। এমন এক পৃথিবী যেখানে সবাই উদ্যোক্তা আর নেতা হতে চায়, যেখানে সবাই তার ছোট্ট জগতে একেক জন সিইও, সেখানে আপনি যা না তা হতে যাবেন না।  আপনি যেমন ঠিক সেরকমই থাকুন।

Similar Posts

Leave a Reply